কেকা ফেরদৌসির বেড়ে উঠার অসাধারণ গল্প!

কেকা ফেরদৌসী, জন্ম ৪ঠা আগস্ট, ১৯৬০ সালে, ঢাকায়।
বাবা ফজলুল হক ছিলেন চলচ্চিত্র সাংবাদিক ও পরিচালক।
মা কথা সাহিত্যিক রাবেয়া খাতুন।

২০১১ সালে তিনি শুরু করেন “মায়ের হাতের রান্না” অনুষ্ঠানটি। বিশিষ্টজনদের মায়ের স্মৃতিময় পছন্দসই রান্নার এই অনুষ্ঠান, কেকা ফেরদৌসীকে নিয়ে গেছে ভিন্ন উচ্চতায়।

“যে রাঁধে সে চুলও বাঁধে” অনুষ্ঠানটিও তার নির্মিত আরো একটি জনপ্রিয় অনুষ্ঠান।
ইলেকট্রনিক মিডিয়ার পাশাপাশি বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় রান্না নিয়ে তার প্রকাশিত লেখা আমাদের রন্ধনশিল্পকে সমৃদ্ধ করেছে। রান্না নিয়ে তার লেখা প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা এগার। সবশেষ বই “ডায়াবেটিসের মজাদার রান্না”।

২০১৪ সালে কেকা ফেরদৌসী গঠন করেন কুকিং এসোসিয়েশন। তার প্রতিষ্ঠিত এই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে দু:স্থ মহিলাদের রান্নার প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদের স্বাবলম্বী করে গড়ে তোলার উদ্যোগ গ্রহন করেন।

কেকা ফেরদৌসী এযাবৎ অসংখ্য পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। ফ্রান্স থেকে পেয়েছেন বেস্ট টিভি সেলিব্রেটি শেফ রেস্ট অফ দা ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল গোরমর্ন্ড ওয়ার্ল্ড কুক বুক এ্যাওয়ার্ড-২০১০, ব্রিটিশ কারী এ্যাওয়ার্ড-২০১১ উল্লেখযোগ্য। কেকা ফেরদৌসী সম্মানিত হয়েছেন আন্তর্জাতিক রান্না প্রতিযোগিতার বিচারকের সম্মানে।
কেকা ফেরদৌসীর দুই সন্তান সোনালী ও আকাশ। পরিবারের আরো দুই সদস্য জামাতা তারিফ এবং নাতি কায়সান।
বাবা মায়ের ৪ সন্তানের মধ্যে কেকা ফেরদৌসী দ্বিতীয়।
তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভূগোল বিভাগে পড়াকালীন সময়েই ব্যবসায়ী ও প্রকৃতিপ্রেমী মুকিত মজুমদার বাবুর সংগে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হন। বিয়ের পর কয়েক বছর অতিবাহিত করেছেন যুক্তরাজ্য এবং যুক্তরাষ্ট্রে।

রান্না করে যেসব পুরস্কার পেলেন কেকা আপা

২০১৪ সালে কেকা ফেরদৌসী গঠন করেন কুকিং এসোসিয়েশন। তার প্রতিষ্ঠিত এই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে দু:স্থ মহিলাদের রান্নার প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদের স্বাবলম্বী করে গড়ে তোলার উদ্যোগ গ্রহন করেন।

এক গোপন সূত্রে যানা গেছে এবারের রমজানে তার রান্নায় আবারো থাকবে বিভিন্ন চমক। গরুর মাংসের সালাত, আলুর জুস, কমলার বোরহানি ইত্যাদি। বিভিন্ন টিভির পর্দায় ঘুরে ঘুরে তিনি তার নিত্য নতুন রেসিপি দেখাবেন বলে জানিয়েছেন।

Leave a Reply